লক্ষ্মীপুরে অপরিকল্পিত মাটি খনন, হুমকির মুখে কৃষি জমি

লক্ষ্মীপুরে অপরিকল্পিত মাটি খনন, হুমকির মুখে কৃষি জমি জেলার সদর উপজেলার চন্দ্রগঞ্জ থানা সংলগ্ন একটি ফসলি জমি থেকে খনন যন্ত্র দিয়ে মাটি কাটা হচ্ছে। ছবি- ডেইলি বার্তা

লক্ষ্মীপুরে অপরিকল্পিতভাবে কৃষি জমির মাটি কাটার ফলে হুমকির মুখে পড়েছে কৃষি উৎপাদন। জেলার বিভিন্নস্থানে ফসলি জমির মাটি কেটে ব্যবহার করা হচ্ছে ইটভাটাসহ বিভিন্ন নিন্মাঞ্চল ভরাটের কাজে। এতে দিন কমছে কৃষি জমির পরিধি। কৃষি জমি সুরক্ষায় ভূমি মন্ত্রণালয় কর্তৃক সু-নির্দিষ্ট আইন থাকলেও আইন প্রয়োগ করছে না সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। 

আর কৃষি জমির মাটি বহনে ব্যবহার করা হচ্ছে অবৈধ যান পাওয়ার টিলার (ট্রাক্টর) এবং লাইসেন্সবিহীন পিকআপ গাড়ি। গ্রামীন সড়ক দিয়ে এ সকল দানব আকৃতির যান চলাচলের কারণে বিনষ্ট হচ্ছে জনসাধারণের চলাচলের রাস্তা। আর মাটিবাহী যানগুলো এ সকল সড়ক দিয়ে বেপরোয়া গতিতে চলাচল করায় ঝুঁকিতে রয়েছে এলাকাবাসী। 

এ সকল যানবাহনের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নিচ্ছেনা আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। মাটি ক্রয়-বিক্রয় এবং পরিবহন কাজে নিয়োজিত থাকে স্থানীয় বখাটেদের সহযোগীতায় ক্ষমাতাসীন দলের নেতাকর্মীরা। ফলে কেউ প্রতিবাদ করার সাহস পাচ্ছে না। এতে দিন দিন বেপরোয়া হয়ে ওঠেছে তারা।

এ ব্যাপারে সদর উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. মামুনুর রশীদ জানান, ফসলি জমির মাটি কাটার সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, জেলার সদর উপজেলার ভাঙ্গাখাঁ ইউনিয়নের গৌরিনগর ও আদিলপুর গ্রামের বিশাল আকৃতির একটি ফসলি জমির মাটি ইটভাটায় সরবরাহ করছেন ইউনিয়ন স্বেচ্চাসেবক লীগের আহ্বায়ক সৈনিক ফরহাদ ওরফে ন্যাংড়া ফরহাদ। একই এলাকা থেকে ফসলি জমির মাটি কাটছে ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি এমএ কাইয়ুম রুবেল ও ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জিহাদুল ইসলাম, বঙ্গবন্ধু সৈনিক লীগের সদস্য আর্মি মুরাদ, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা মো. আবদুল কাদের। একই ইউনিয়নের উত্তর গৌরিনগর, মিরিকপুর ও নেয়ামতপুরের ফসলি জমি থেকে মাটি কেটে ইটভাটায় সরবরাহ করছে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. শাহজাহান এবং ইউপি সদস্য ও যুবলীগ নেতা মো. শাহজাহান মেম্বার।

উপজেলার দত্তপাড়া ইউনিয়নের কৃষকলীগ নেতা মো. বেলাল হোসেন, ইউনিয়ন স্বেচ্চাসেবকলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক শাহাদাত হোসেন, লম্বা সাহাবুদ্দিন, টাকলু রুবেলসহ ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীরা ওই এলাকার বিস্তৃর্ণ ফসলি জমি থেকে খনন যন্ত্রের মাধ্যমে মাটি কাটছেন। অভিযোগ রয়েছে, দত্তপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান আহসনুল কবীর রিপন মাটি দস্যুদের কাছ থেকে আর্থিক সুবিধা নিয়ে ওই ইউনিয়নের সড়ক দিয়ে মাটিবাহী গাড়ি চলাচলের মৌখিক অনুমতি দিয়েছেন। এতে এলাকাবাসীর মধ্যে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, দিনে-রাতে ১৫-২০ মাটিবাহী পিকআপ চলাচলের কারণে দত্তপাড়া ইউনিয়নের সৈয়দপুর ও করইতোলা গ্রামের মাটির সড়কগুলোর বেহাল অবস্থা দেখা দিয়েছে। একই অবস্থা দেখা গেছে ভাঙ্গাখাঁ ইউনিয়নের কাঁচা সড়কগুলোর।

ভাঙ্গাখাঁ ইউনিয়ন যুবলীগ নেতা ফরহাদ হোসেন একটি জমির মাটি ক্রয় করলেও ওই জমির আশপাশের কৃষি জমির ওপর দিয়ে মাটি পরিবহনের কাজে নিয়োজিত লাইসেন্স বিহীন পিকআপ চলাচল করায় অন্য জমিতে চলতি মৌসুমে বরো আবাদে বিঘ্ন ঘটে। আর ওই এলাকার গ্রামীন সড়ক দিয়ে মাটিবাহী যানগুলো চলাচল করায় বেহাল অবস্থা দেখা দিয়েছে সড়কগুলোর। সদর উপজেলার চন্দ্রগঞ্জ ইউনিয়নের হাজিরপাড়া এলাকায় ফসলি জমির মাটি কেটে ইটভাটায় সরবরাহ করছেন স্থানীয় আওয়ামীলীগকর্মী ও বটগাছ তলার শাহাজান।

মাটি কাটার বিষয়ে এলাকাবাসীর অভিযোগ না থাকলেও অভিযোগ রয়েছে মাটি পরিবহনে নিযুক্ত যানবাহনগুলোর প্রতি। তাদের অভিযোগ, দিনে-রাতে ১৫-২০ টি পিকআপ উপজেলার দত্তপাড়া এলাকার প্রায় তিন কি. মি. রাস্তা দিয়ে চলাচল করায় বিনষ্ট হয়ে গেছে রাস্তার অধিকাংশ অংশ। অদক্ষ চালকরা বেপরোয়া গতিতে গাড়ি চালানোর কারণে দুর্ঘটনার আশঙ্কা করছেন তারা। এছাড়া দিনের বেলা ছাড়াও রাতের বেলা গাড়িগুলো চলাচল করায় শিক্ষার্থীদের পড়া-লেখায় বিঘ্ন হচ্ছে। গাড়ির শব্দে ঘুমাতে পারছেন না এলাকাবাসী।

এদিকে, বরিবার দুপুরে ঢাকা-লক্ষ্মীপুর মহাসড়কের পৌর এলাকার পলোয়ান মসজিদের সামনে মাটিবাহী পিকআপের সাথে একটি মোটর সাইকেলের দুর্ঘটনা ঘটে। এতে মোটর সাইকেলে থাকা দুই আরোহী গুরুতর আহত হয়। এদের মধ্যে একজনের মাথা ফেটে যায়। দুর্ঘটনার সাথে জড়িত রেজিষ্ট্রেশনবিহীন পিকআপটি স্বেচ্চাসেবকলীগ নেতা ফরহাদের মাটি বহনের কাজে নিয়োজিত বলে জানা গেছে।  

অন্যদিকে জেলার রামগঞ্জে কৃষি জমি থেকে মাটি কেটে ইটভাটায় ব্যবহার করার কারণে ইটভাটা নিয়ন্ত্রণ আইনে দুইটি ভাটায় অভিযান চালিয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ সময়  ৭৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

আপনার মতামত লিখুন :

আরও পড়ুন :