মির্জাগঞ্জে রাস্তাঘাট ফাঁকা!

মির্জাগঞ্জে রাস্তাঘাট ফাঁকা! মির্জাগঞ্জে রাস্তাঘাট ফাঁকা!

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ন্ত্রন ও প্রতিরোধের জন্য পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জে রাস্তা ফাঁকায় প্রশাসন প্রশংসনীয়। সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী উপজেলার ছয় ইউনিয়নের হাট-বাজারের ঔষধ, মুদি-মনোহরি ও কাঁচা বাজারের দোকান ব্যতীত সকল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও গণপরিবহনসহ সকল প্রকার যানবাহন লকডাউনে রয়েছে।

প্রয়োজন ছাড়া কাউকে রাস্তায় পেলে পুলিশ এলোপাথারী লাঠিপেটাসহ পুলিশ ভ্যানে তুলে নিচ্ছেন। এ ঘটনায় শংকিত হয়ে অনেকে প্রয়োজনেও বাড়ির বের হওয়া থেকে বিরত রয়েছে। উপজেলার সকল গণপরিবহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। করোনা ভাইরাসের প্রভাব ঠেকানোর কৌশলে প্রশংসায় ভাসছে মির্জাগঞ্জ প্রশাসন। তারা তাদের দায়িত্ব সঠিক ভাবে পালন করছেন।

সচেতন মহলের দাবী, করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ন্ত্রনের জন্য সরকারি ভাবে বিধি নিষেধ উপেক্ষ করে গত কয়েক দিনে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্নস্থান হইতে বিভিন্নভাবে গ্রাম গঞ্জে মানুষ ডুকে পরেছে। হোম কোয়ারেন্টাইনে না থেকে প্রকাশ্যে চলাফেরা করেছে।

এ ব্যপারে উপজেলা স্বাস্থ্য ও প.প. কর্মকর্তা ডা. দিলরুবা ইয়াসমিন লিজা জানান, বিদেশ ফেরতদের হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। এবং তাদের সার্বক্ষণিক খোঁজখবর নেয়া হচ্ছে।

 মির্জাগঞ্জ থানার ওসি এম আর শওকত আনোয়ার ইসলাম বলেন, করোনাভাইরাস বিস্তার রোধে ঔষধের ফার্মেসী ও নিত্যপন্যের দোকান ছাড়া উপজেলার সকল হাট-বাজারের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। আর জনসাধারন যেন একত্রিত হতে না পারে সে লক্ষে আমিসহ আমার পুলিশ বাহিনী দিনরাত কাজ করে যাচ্ছি।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ সরোয়ার হোসেন বলেন, করোনা ভাইরাস বিস্তার রোধে উপজেলায় প্রতিদিন ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা অব্যাহত রয়েছে। উপজেলার সকল জনসাধারন বাড়ির বাহিরে বের হওয়া থেকে বিরত রয়েছে।

আপনার মতামত লিখুন :

আরও পড়ুন :