শান্তি চান পরমব্রত

শান্তি চান পরমব্রত

দেশ–জাতি–হলিউড–বলিউড–ঢালিউডনির্বিশেষে বিশ্বের তারকারা শ্রীলঙ্কার বোমা হামলার ঘটনায় নিন্দা ও শোক জানিয়েছেন। ঘটনায় হতাহত ব্যক্তিদের প্রতি সহমর্মিতা প্রকাশ করেছেন। বাদ যাননি ভারতের বাংলা ছবির জনপ্রিয় অভিনেতা পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়, দেব বা প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়।

সর্বশেষ সন্ত্রাসী হামলায় যে কেবল শ্রীলঙ্কা আক্রান্ত হয়েছে, তা নয়। বরং এই হামলা আক্রান্ত করেছে পুরো বিশ্বকে। সন্ত্রাসীদের লক্ষ্য কোনো নির্দিষ্ট মানুষ বা ধর্ম নয়, তাদের লক্ষ্য মানবতাকে নিশ্চিহ্ন করে ত্রাসের রাজ্য প্রতিষ্ঠা করা। আর সন্ত্রাসীরাও কোনো নির্দিষ্ট দল, মত বা ধর্মের নয়। তাদের একটাই উদ্দেশ্য—সন্ত্রাস! তাই সারা বিশ্বের মানবতাকামী মানুষ এক হয়ে যুদ্ধ ঘোষণা করেছে ঘৃণ্য হিংস্রতার বিরুদ্ধে। তারকা নন, একজন সাধারণ মানুষ হিসেবে পরমব্রতও চুপ করে থাকতে পারেননি।

শ্রীলঙ্কায় গত রোববার ইস্টার সানডেতে আটটি বোমা হামলায় নিহত মানুষের সংখ্যা বেড়ে ৩১০–এ পৌঁছেছে। দেশটির রাজধানী কলম্বো এবং শহরতলির তিনটি গির্জা ও দেশের বড় তিনটি হোটেলে এ হামলা হয়। পরে আরও দুই স্থানে হামলা হয়। আহত মানুষের সংখ্যা ইতিমধ্যে ৫০০ ছাড়িয়েছে। অন্যদিকে, এই ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৪০ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ভয়াবহ এই সিরিজ বোমা হামলার পর ফেসবুক, টুইটারসহ সব সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম আপাতত বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে শ্রীলঙ্কার সরকার।

পশ্চিমবঙ্গের প্রখ্যাত পরিচালক ঋত্বিক ঘটকের নাতি পরমব্রত চট্টোপাধ্যায় এই নৃশংস ঘটনার আকস্মিকতায় আর ভয়াবহতায় হতবিহ্বল হয়ে পড়েছেন। শুধু এবার নয়, যেকোনো ঘটনায় দায়িত্বশীল মন্তব্যের জন্য বেশ প্রশংসিত এই তারকা। বাঙালি এই অভিনেতা এবার পাশের দেশ শ্রীলঙ্কায় ঘটে যাওয়া এই নৃশংস ঘটনায় শান্তি চেয়ে দায়িত্বশীল সংগঠনগুলো বরাবর সাহায্যের আবেদন করেছেন। এই সাহায্যের আবেদনের জন্য তিনি বেছে নিয়েছেন জনপ্রিয় যোগাযোগমাধ্যম টুইটারকে। এই অভিনেতা লিখেছেন, ‘লজ্জায় মাথা নিচু হয়ে গেল। শ্রীলঙ্কার এই বোমা হামলার যাঁরা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন, প্লিজ আমাদের ক্ষমা করবেন। মানবতা, যদি সম্ভব হয়, আমাদের ক্ষমা করো। শ্রীলঙ্কার জন্য প্রার্থনা।’

শুধু পরমব্রত নয়, টালিগঞ্জের অভিনেতা প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়, দেবও এই ঘটনায় আক্রান্ত ব্যক্তিদের সঙ্গে সহমর্মিতা জানিয়েছেন। প্রসেনজিৎ লিখেছেন, ‘শ্রীলঙ্কার এই ভয়াবহ হামলায় তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। পৃথিবী থেকে কবে যে এই সন্ত্রাসবাদ দূর হবে, কে জানে! ক্ষতিগ্রস্ত ও তাঁদের পরিবারের জন্য আন্তরিক সহমর্মিতা জানাচ্ছি।’

আপনার মতামত লিখুন :