আলেক্সি নাভালনিকে যেভাবে বিষ প্রয়োগ করা হয়েছিল

আলেক্সি নাভালনিকে যেভাবে বিষ প্রয়োগ করা হয়েছিল

রাশিয়ার কেন্দ্রীয় নিরাপত্তা সংস্থার (ফেডারেল সিকিউরিটি সার্ভিস–এফএসবি) এক এজেন্ট বিরোধী নেতা আলেক্সি নাভালনিকে কীভাবে বিষপ্রয়োগ করা হয়েছিল, তা ফাঁস করে দিয়েছেন। কৌশলে তাঁর কাছ থেকে এই তথ্য আদায় করে সিএনএন ও অনলাইনভিত্তিক তদন্তকারী দল বেলিংক্যাট। আর পরিচয় গোপন করে ফোনালাপে নাভালনি নিজেই বের আনেন এসব কথা।

 গত আগস্টে নাভালনিকে বিষ প্রয়োগ করা হয়। নিরাপত্তা সংস্থার টক্সিন দলের ওই সদস্য কোনসতানতিন কুদ্রেইয়াভিস্তেভ বলেছেন, প্রাণঘাতী রাসায়নিক নভিচক নাভালনির অন্তর্বাসে রাখা হয়েছিল। ফোনালাপে কোনসতানতিন কুদ্রেইয়াভিস্তেভ সাইবেরিয়ার টমসক শহরে বিষ প্রয়োগে জড়িত অন্যদের কথাও জানিয়েছেন।

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের চক্ষুশূল নাভালনি। তিনি সর্বোচ্চ পর্যায়ের দুর্নীতির নানা তথ্য প্রকাশ করেছেন। ক্ষমতাসীন ইউনাইটেড রাশিয়া দলের বিরুদ্ধে প্রচার চালিয়েছেন।

গত সপ্তাহে পুতিন বলেন, এফএসবি এজেন্টরা নাভালনির পিছু নিয়েছিলেন। তবে তিনি এও বলেন, রাশিয়া যদি নাভালনির মৃত্যু চাইত, তাহলে তাঁকে শেষ করে দিত।

বেলিংক্যাট-সিএনএনের তদন্তে জানা গেছে, এফএসবি টক্সিন দলের ৬ থেকে ১০ জন এজেন্ট ৩ বছরের বেশি সময় ধরে নাভালনিকে অনুসরণ করতেন। তাঁদের শনাক্ত করার পরে সিএনএন ও বেলিংক্যাট তাঁদের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা শুরু করে। তাঁদের মধ্যে একজন ছিলেন ওলেগ তায়াকিন। সিএনএনের প্রশ্নের মুখে তিনি দরজা বন্ধ করে দেন। বাকিরা কেউ কোনো কথা বলেননি। 

এরপর কৌশলে কথা বলা হয় কুদ্রেইয়াভস্তিভের সঙ্গে। জার্মানির গোপন জায়গায় রয়েছেন নাভালনি। তিনি এখনো পুরোপুরি সুস্থ নন। নাভালনি রাশিয়ার ন্যাশনাল সিকিউরিটি কাউন্সিলের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা হিসেবে নিজের পরিচয় দেন কুদ্রেইয়াভিস্তেভ। বলেন, তিনি বিষ প্রয়োগ নিয়ে কাজ করছেন। এফএসবির সদর দপ্তরের ফোন নম্বরের মতো করেই নাভালনির ফোন নম্বর সাজানো হয়। ফোনালাপ রেকর্ড করে সিএনএন ও বেলিংক্যাটকে দেওয়া হয়।

ফোনালাপে নাভালনি জানতে চান, টমসকে নাভালনিকে বিষপ্রয়োগের অভিযান কেন ব্যর্থ হলো। কুদ্রেইয়াভিস্তেভের সঙ্গে প্রায় ৪৫ মিনিট কথা হয় ছদ্মবেশী নাভালনির।

তিনি বারবারই কুদ্রেইয়াভস্তিকে বলেন, ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের এ বিষয়ে তাঁকে জরুরি রিপোর্ট দিতে হবে। এফএসবি গতকাল সোমবার এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, কুদ্রেইয়াভিস্তেভের সঙ্গে নাভালনির ফোনালাপের যে ভিডিও ইউটিউব চ্যানেলে পোস্ট করা হয়েছে, তা ভুয়া। বিদেশি গোয়েন্দাদের সুবিধার জন্য এমনটা করা হয়েছে।

নাভালনির অন্তর্বাসে কেন নার্ভ এজেন্ট রাখা হয়?

নাভালনি জানতে চান কেন তাঁর অন্তর্বাসে ওই রাসায়নিক রাখা হয়েছিল? উত্তরে কুদ্রেইয়াভিস্তেভ জানান, অন্তর্বাস সবচেয়ে বিপজ্জনক। নার্ভ এজেন্ট নভিচক ত্বকের সংস্পর্শে গিয়ে বিষক্রিয়া শুরু করে দ্রুত। বিষ বিশেষজ্ঞরা সিএনএনকে জানান, নভিচক গুঁড়ো করে কাপড়ে দিলে ত্বক সেটি শুষে নেয়। মানুষ যখন ঘেমে যায় তখন এটি ত্বকে ঢুকে বিষক্রিয়া শুরু করে।

আপনার মতামত লিখুন :

আরও পড়ুন :