মির্জাগঞ্জে নদীর পানি বৃৃদ্ধি, সুবিদখালী বাজারসহ নিম্নাঞ্চল প্লাবিত

মির্জাগঞ্জে নদীর পানি বৃৃদ্ধি, সুবিদখালী বাজারসহ নিম্নাঞ্চল প্লাবিত সুবিদখালী বাজার

মোঃ আবদুর রহিম সজল, মির্জাগঞ্জ (পটুয়াখালী) প্রতিনিধিঃ পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জে অমাবস্যার প্রভাবে পায়রা ও শ্রীমন্ত নদীর পানি স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে বৃদ্ধি পেলে সুবিদখালী বাজারসহ উপজেলার নিম্নাঞ্চলগুলো পানিতে প্লাবিত হয়েছে। বুধবার(১৯ আগস্ট) সকাল সাড়ে নয়টা থেকে দেড়টা পর্যন্ত এ জোয়ারের পানি প্রবাহিত হয়।

এদিকে গতকাল সকাল থেকে আকাশ মেঘাছন্ন ও থেমে থেমে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি হচ্ছে। নদীতে জোয়ারের পানি ৪-৫ ফুট উঁচুতে প্রবাহিত হচ্ছে। তলিয়ে গেছে পায়রাকুঞ্জ ফেরিঘাটের পন্টুনের গ্যাংওয়ে। এতে ভোগান্তিতে পড়ে হাজারও যাত্রী। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ফেরীতে উঠতে হচ্ছে নৌকায় করে। আবার এতে তাদেরকে গুনতে হচ্ছে অতিরিক্ত টাকা। পিপড়াখালী বেড়িঁবাধের বাইরে বসবাসরত ১৫টি পরিবার প্রতিদিন দু’বার করে জোয়ারের পানিতে প্লাবিত হচ্ছে। তারা ‘ভাটায় রাঁধে জোয়ারের খায়’ এমন অবস্থা ওইসব পরিবারের বলে জানান পিপড়াখালী গ্রামের মোঃ আসাদ। শ্রীমন্ত নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় সুবিদখালী বাজারে বাজার করতে আসা লোকজনদের ভোগান্তিরযেন শেষ নেই। বুধবার সাপ্তাহিক হাট বসায় সুবিদখালী বাজারে পার্শ্ববর্তী উপজেলা থেকেও লোকজন বাজার করতে আসেন। বাজার প্লাবিত হওয়ায় ক্রেতা ও বিক্রেতা উভয়ই ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছেন।

পায়রা নদীতে জোয়ারের পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় নদীবৃষ্টিতে মির্জাগঞ্জ ইউনিয়নের সুন্দ্রা কালিকাপুর, ভিকাখালী, রামপুর, পিপড়াখালী, কপালভেড়া এবং দেউলী সুবিদখালী ইউনিয়নের গোলখালী, মেহেন্দীয়াবাদ, চরখালী, রাণীপুর, কাঁকড়াবুনিয়া ইউনিয়নের ভয়াং ও কাকড়াবুনিয়া গ্রামের মানুষ আতঙ্কের মধ্যে আছে।

বুধবার(আজ) দুপুরে জোয়ারের পানিতে এসব অঞ্চলের বেড়িবাঁধ ছুঁই ছুঁই পানি উঠেছে। তবে ঘূর্নিঝড় আম্ফানে এসব বাঁধ নতুন করে নির্মান করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ সরোয়ার হোসেন বলেন, সুবিদখালী বাজারে শ্রীমন্ত নদীর পানি যাতে না উঠতে পারে ও পথচারীদের যাতে ভোগান্তি না হয় সে ব্যাপারে উপজেলা চেয়ারম্যান মহোদয়ের সাথে আলাপ করে এবং আমি সরেজমিনে পরিদর্শন করে এর ব্যবস্থা গ্রহন করবো। এ ছাড়াও উপজেলার সুবিদখালী বাজার ও মহাসড়কের পাশে সুষ্ঠু ড্রেনেন্সে ব্যবস্থা না থাকায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। যাতে যলাবদ্ধতা দেখা না দেয় সে লক্ষে আমাদের কাজ চলছে। আশা করছি কাজ অতিশিঘ্রই শুরু হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

আরও পড়ুন :